বিবাহবার্ষিকীর রাতে চরম মুহূর্তে গোপনাঙ্গ ভাঙল স্বামীর


দুটি মানুষের হাতে হাত রেখে একসঙ্গে কাটানো দাম্পত্য জীবনের প্রত্যেকটা দিন একই ছন্দে চলে না। ভাব আড়ি লেগেই থাকে। তবে অনেকেই মনে করেন, দাম্পত্যের একঘেয়েমি কাটানোর জন্য সবচেয়ে প্রয়োজন সঠিকভাবে বিবাহবার্ষিকী উদযাপন।


গোটা বছরের অক্সিজেন সংগ্রহের দিনে একান্তে কিছুটা সময় কাটানো দরকার। কারণ, ওই প্রাণবায়ুর জোরেই তো এগিয়ে যাবে সম্পর্ক। তৃতীয় বিবাহবার্ষিকীকে ঠিক এমনই রঙিন করে তুলতে চেয়েছিলেন লন্ডনের এক দম্পতি। নানা পরিকল্পনাকে প্রায় মিথ্যে প্রমাণ করে যা ঘটল, তা যেন ভাবনারও অতীত।


লিভারপুলের বাসিন্দা ওই দম্পতি খুবই ব্যস্ত দিন কাটান। সারাদিন সেভাবে কথা বলারও সময় পান না দুজনে। তাই বিবাহবার্ষিকীতে একসঙ্গে কিছুটা সময় কাটানোর পরিকল্পনা করেছিলেন। সে কারণে শহর থেকে বেশ কিছুটা দূরে একটি হোটেল বুক করেন। হোটেলে ঢুকে নিজেরাই বিবাহবার্ষিকী উদযাপন করতে শুরু করেন। খাবার খান, সঙ্গে চলে মদ্যপান। বেশ কিছুক্ষণ পর নেশার ঘোরে প্রায় অচৈতন্য হয়ে পড়েন তরুণী।


সেই সময় উদ্দাম আকঙ্খায় মেতে ওঠার চেষ্টা করেন তরুণীর স্বামী। তবে নেশার ঘোরে তাতে সায় দিতে পারছিলেন না তরুণী। নিজেও ঠিক যা চাইছিলেন তা পারছিলেন না। সে কারণে যৌন উত্তেজনাবর্ধক ভায়াগ্রা খেয়ে ফেলেন ওই ব্যক্তি। তারপরই দম্পতি নিজেদের নিয়ে মেতে ওঠেন। ইতিমধ্যে নিজেকে কিছুটা সামলে নিয়েছিলেন তরুণী।


তবে চরম মুহূর্তেই যেন ছেদ পড়ল। যৌনতার মাঝে যৌনাঙ্গে প্রবল ব্যথা অনুভব করেন ওই তরুণ। তড়িঘড়ি দম্পতি যান হাসপাতালে। চিকিৎসকরা জানান, সঙ্গমকালে গোপনাঙ্গ ভেঙে গিয়েছে তরুণের। আপাতত চিকিৎসাধীন তিনি। এই ঘটনায় স্বাভাবিকভাবেই হতবাক প্রায় সকলেই। তৃতীয় বিবাহবার্ষিকী স্মরণীয় করে তুলতে গিয়ে যে এমন কাণ্ড ঘটতে পারে, তা বোধহয় আশা করেননি ওই দম্পতিও।

কোন মন্তব্য নেই

Blogger দ্বারা পরিচালিত.